রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়মিত প্রকাশ করে যাচ্ছে আজকের বসুন্ধরা ১৭তম বর্ষপূর্তি অনুুষ্টানে -সোহেল রানা




জাতীয় দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার ১৭তম প্রতিষ্টাবার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশের সাংবাদিকদের নিয়ে সাংবাদিক মিলনমেলা-২০২২ ইং ২৩ সেপ্টেম্বর রোজ শুক্রবার রাজধানীর পল্টনের আল রাজী কমপ্লেক্সের ৪র্থ তলায় অনুষ্ঠিত হয়। 

দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও সাংবাদিক মিলনমেলায় সভাপতিত্ব করেন দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোঃ সোহেল রানা। 
আজকের বসুন্ধরা ১৭তম বর্ষপূর্তি অনুুষ্টানের সভাপতি সোহেল রানা তাঁর বক্তব্যে বলেন একঝাঁক তরুণ প্রবীণ সাংবাদিকদের সমন্বয়ে কঠোর পরিশ্রম করে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রতিবেদ নিয়মিত প্রকাশ করে যাচ্ছে। সকলের সহযোগিতায় পত্রিকাটি পাঠক সমাজে সমাদৃত হচ্ছে। আজকের বসুন্ধরায় যুক্ত সকল প্রতিনিধি আমাদের একটি বিশাল পরিবার গড়ে উঠেছে। পত্রিকাটি পর্যায়ক্রমে আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রথম শ্রেণীর কাতারে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারব ইনশাআল্লাহ, তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।  ২০০৪ সালের ১১ ফেব্রুয়ারী মাসে এসএম শওকত হোসেনের সম্পাদনায় বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে প্রচার প্রকাশনার কাজ শুরু কর1 হয়। ২০২১ সালের অক্টোবর মাসে তিনি মৃত্যুবরণ করায় তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক ফরিদ খান,  দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার চীফ রিপোর্টার সাইদুর রহমান বাবুল, চীফ ক্রাইম রিপোর্টার শিবলী সাদিক খান,  এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের সকল বিভাগ, জেলা ও উপজেলা থেকে আগত ব্যুরো প্রধান, স্টাপ-রিপোর্টার, জেলা প্রতিনিধি, বিশেষ প্রতিনিধি, উপজেলা প্রতিনিধি সহ প্রমূখ।

এর আগে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওাত করেন চট্টগ্রাম রিপোর্টার হাফেজ আমানউল্লাহ দৌলত।
আজকের বসুন্ধরা সম্পাদক এসএম শওকত হোসেনের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। আজকের বসুন্ধরা ১৭তম বর্ষপূর্তির কেক কেটে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়।
দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার ১৭ তম প্রতিষ্টা বার্ষিকীতে নিয়মিত সঠিক সংবাদ পরিবেশন করে বিশেষ অবদান রাখায় ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সোহেল রানা দৈনিক আজকের বসুন্ধরা পত্রিকার পরিবারের পক্ষ থেকে একশত পঞ্চাশ জনকে প্রত্যয়নপত্র ও সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। এছাড়াও টি শার্ট, মগ, ক্যাপ, মাক্স, কলম, স্টিকার, চাবির রিং, ফিতা ইত্যাদি উপহার হিসাবে প্রদান করা হয়। 
আলোচনা সভা ও স্বারক প্রদানের পূর্বে মধ্যহ্ন ভোজন ও পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত করা হয়।

শেয়ার করুন

0 coment rios: